কলিকপেইন ও হোমিওপ্যাথি

0
1
Every problem Have A Solution,You just need To know the Way….
অনেকের বাচ্চা জন্মের পর কয়েক মাস কান্না করে,অনেকে আবার বছর খানেক ও থাকে।
যাকে অনেকে কলিকপ্যান বলে।
প্রেগন্যান্ট থাকা অবস্থায় একটা মেয়ে অনেক নির্ঘুম রাত কাটায়,এরপর বাচ্চা হওয়ার পরে, সংসার সামলে, সারাদিন কাজ করে,রাতে ঘুমাতে পারে না,
তখন তার মানসিক অবস্থা কেমন হয়? তার হরমোনাল ব্যালেন্স কিভাবে থাকে বলেন ত!সে কতটুকু সুস্থ থাকে!
আমার কথা বলি,আমার প্রথম সন্তান হওয়ার পর,প্রথম কয়দিন ভালো ভাবেই ঘুমিয়েছিল,কিন্তু তারপর
রাত ১১-১২টা..
তারপর ১-২ টা.
এভাবে একদিন রাত চারটা অব্দি সে জেগে থাকে।
সেদিন আমি এত বেশি কষ্ট পাচ্ছিলাম।
অনেকে হয়ত আমাকে খারাপ মা বলবে,কিন্তু সেদিন আমি আর নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারিনি,এত রাগ হয় যে,
আমার অতটুকু দুধের বাচ্চাকে হালকা আঘাত করতে বাধ্য হয়ে গেছি।
কারন কয়েকদিন পর পর আমি নির্ঘুম রাত কাটিয়েছি।
পরে ভাবলাম এভাবে ত হয়না,
কারণ দিনের বেলা একটা বাচ্চা ২০-৩০ মিনিটের বেশি ঘুমায় না,
আর এত টুকু সময় কোনো মায়ের জন্য পর্যাপ্ত ঘুমের সময় নয়।
যেকোনো মানুষের জন্যই রাতের ঘুমটাই বড় নিয়ামত।
কয়েকদিন নির্ঘুম রাত কাটানোর সময় আমি পরিচিত একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করি,তখন ডাক্টারের সাজেশন অনুযায়ী একটা মেডিসিনের অল্প পরিমান..
পানির সাথে মিশিয়ে বাচ্চাকে দিই।
আলহামদুলিল্লাহ, পরে বাচ্চার একটা নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমানো অভ্যেস হয়ে গেছে।
কলিকপেইন বলে এইযে মায়েদের সান্তনা দেয়া হয় যে,ঠিক হয়ে যাবে।
এটার কিন্তু সমাধান আছে।
অনেকে এটা জানে না।
হোমিওপ্যাথিতে এমন কান্নার মেডিসিন আছে,
তাছাড়া বাচ্চা রাগ,জেদ করে কান্না করলেও সেটার মেডিসিন ও আছে।
আমি আগের থেকে হোমিওপ্যাথিতে বিশ্বাস করতাম,এটা আমার জীবনে আশীর্বাদের মতন ই।
হোমিওপ্যাথিতে যুক্ত থাকার কারণে এসব সমস্যার সমাধান ভালোভাবে করতে পেরেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here