মেনোপজের সময় যে সমস্ত লক্ষন মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়

0
9

মেনোপজের সময় যে সমস্ত লক্ষন মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়
মেনোপজ কে ডাক্তারি ভাষায় বলা হয় climaxes
যখন মহিলাদের পিরিয়ড অফ হয়ে যায় তখন মেনোপজ শুরু হয়।
৪১ -৪২ বছর বয়স থেকে মেনোপজ শুরু হয়।কারো আবার এর থেকে কম বয়সেও শুরু হয়।কারো আবার ৪৭,৪৮,৪৯ বছর বয়সে মেনোপজ শুরু হয়।মূলত যখন একটা সময় পরে মহিলাদের পিরিয়ড সার্কেল অফ হয়ে যেতে থাকে অর্থাৎ নিয়মিত Monthly পিরিয়ড না হয়ে সেটা গ্যাপ দিয়ে হয়ে থাকে তখন মহিলাদের শরিরে এক ধরনের হরমোন এর পরিবর্তন হয়,হরমোনের পরিবর্তন এর ফলে
তাদের শরিরে কিছু রোগের ও সৃষ্টি হয়।সেই রোগগুলো সম্পর্কে এখন আলোচনা করবো
মেনোপজে যে কমন সিমটম গুলা দেখা দেয় মহিলাদের ঃ
*১-শরির দিয়ে গরম ভাপ বের হয় যেটাকে বলা হয় hot flash
যেমন মিনিটে মিনিটে শরির গরম হয়ে যায় আবার ঠান্ডা হয়ে যায়।তার হাত,মুখ,মাথা, তালু অনবরত জ্বলতে থাকে, শরির হঠাৎ করে ঘামাচ্ছন্ন হয়ে যায় আবার হঠাৎ করেই শরির ঠান্ডা হয়ে যায়।
এটা সবচেয়ে বেশি এই সময়ে মহিলাদের কষ্ট দিয়ে থাকে।আর এই সিমটম টাই সবচেয়ে বেশি মহিলাদের শরিরে দেখা দেয়
২-স্লিপ মানে নিদ্রা সমস্যা –
এই সময়ে মহিলাদের ঘুমের সমস্যা দেখা দেয় যেহেতু তার শরিরে হরমোনের পরিবর্তন হয় তাই তার ঘুমের মধ্যে বেঘাত ঘটে। একনাগারে ঘুমিয়ে তাদের সকাল হয় না।
৩- মুড চ্যাঞ্জ-
এই সময় মহিলাদের সবচেয়ে বেশি দেখা দেয় সেটা হল মোড সুইং। খানিক সময় মোড ভালো থাকে আবার খানিক সময় রাগ বা অনেক জেদি থাকে।তার মনের মধ্যে এমন ফিলিং থাকে যে পরিবারে তার কোন Value নাই।সন্তানের কাছে তার ভ্যালো নেই ,স্বামীর কাছে তার কোন ভ্যালো নেই।এই যে মোড সুইং হয় এটা এই সময় মহিলাদের সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে।
৪- আরেকটি কমন সিমটম হচ্ছে anxiety :
এসময় মহিলারা অযথা ছোট খাটো সব বিষয়ে টেনশান করে অর্থাৎ ডিপ্রেশন এ পরে যায় । এটা হরমোনের চ্যাঞ্জের কারণে হয়ে থাকে
এসস্ত লক্ষন এর উপর ভিত্তি করে যদি হোমিওপ্যাথি ট্রিটমেন্ট দেওয়া হয় তবে আলহামদুলিল্লাহ মহিলারা সেসমস্ত সমস্যা থেকে রিকভার করে।
সেক্ষেত্রে কিছু মেডিসিন যেমন -,,sepia,grafities,puls etc,যদি লক্ষন অনুযায়ী এই সমস্ত মেডিসিন দেওয়া হয় তাহলে এই রোগ নিরাময় করা সম্ভব ইনসাআল্লাহ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here